মযি কতটুকু লাগলে শরীর বা কাপড় নাপাক হয়?

জিজ্ঞাসা–৪৭০: আসসালামু আলাইকুম। আপনাদের এই চমৎকার প্রচেষ্টার জন্য ধন্যবাদ জানাই। আমার পূর্বের প্রশ্নের জবাব পেয়েছি। আরেকটি প্রশ্ন হল-মযি লেগে শরীর নাপাক হয় কী? আবার, মযিযদি এক দিরহাম থেকে কম পরিমাণ হয় তাহলে তাতে কী পোশাক নাপাক হবে? শরীর ও পোশাক নাপাক হলে তা পবিত্র করার পদ্ধতি কী?–মাহ্দী

জবাব: وعليكم السلام ورحمة الله وبركاته

আমাদের সাথে থাকার জন্য আল্লাহ আপনাকে উত্তম প্রতিদান দিন।

প্রশ্নকারী ভাই, মযী নাপাক। এটি শরীরে বা কাপড়ে লাগলে ধুয়ে ফেলা দ্বারা পাক হয়ে যায়।

عَنْ سَهْلِ بْنِ حُنَيْفٍ، قَالَ كُنْتُ أَلْقَى مِنَ الْمَذْىِ شِدَّةً وَكُنْتُ أُكْثِرُ مِنْهُ الاِغْتِسَالَ فَسَأَلْتُ رَسُولَ اللَّهِ صلى الله عليه وسلم عَنْ ذَلِكَ فَقَالَ :‏ إِنَّمَا يُجْزِيكَ مِنْ ذَلِكَ الْوُضُوءُ ‏‏.‏ قُلْتُ يَا رَسُولَ اللَّهِ فَكَيْفَ بِمَا يُصِيبُ ثَوْبِي مِنْهُ قَالَ ‏: يَكْفِيكَ بِأَنْ تَأْخُذَ كَفًّا مِنْ مَاءٍ فَتَنْضَحَ بِهَا مِنْ ثَوْبِكَ حَيْثُ تُرَى أَنَّهُ أَصَابَهُ ‏

সাহল ইবনু হুনাইফ রাযি. হতে বর্ণিত, তিনি বলেছেন, আমার অত্যধিক মযী নির্গত হত তাই আমি অধিক গোসল করতাম। অতঃপর আমি এ ব্যাপারে রাসূলুল্লাহ ﷺ-কে জিজ্ঞাসা করি তিনি বলেন, মযী বের হওয়ার পর অযু করাই যথেষ্ট। তখন আমি বলি, ইয়া রাসূলুল্লাহ্! আমার কাপড়ে মযী লাগলে কি করব? তিনি বলেন, কাপড়ের যে যে স্থানে মযীর নিদর্শন দেখবে, এক আজলা পানি নিয়ে উক্ত স্থান ধুয়ে নিবে, যাতে তা দূরীভূত হয়। (আবু দাউদ ২১০)

আর শরীর বা কাপড় নাপাক হওয়ার পরিমাণ এক দিরহাম। অর্থাৎ, নাপাকি পরিমাণে এক দিরহাম বা তার বেশি হলে শরীর বা কাপড় নাপাক হয়। অন্যথায় নাপাক হয় না।

عن علي وبن مسعود أنهما قدرا النجاسة بالدرهم وكفى بهما حجة في الاقتداء

হযরত আলী রাযি. এবং ইবনে মাসউদ রাযি. নাপাক হওয়ার পরিমাণ নির্দিষ্ট করেছেন এক দিরহাম। আর মানার জন্য দলিল হিসাবে এই দু’জনই যথেষ্ট। (উমদাতুল কারী ৩/১৪০)

والله اعلم بالصواب

উত্তর দিয়েছেন
মাওলানা উমায়ের কোব্বাদী নকশবন্দী

The post মযি কতটুকু লাগলে শরীর বা কাপড় নাপাক হয়? appeared first on কোরআনের জ্যোতি.

3 thoughts on “মযি কতটুকু লাগলে শরীর বা কাপড় নাপাক হয়?

  1. Jannat Reply

    আসলামুআলাইকুম এই ধরনের প্রশ্নোত্তরের ব্যবস্থা করার জন্য ধন্যবাদ।আমার প্রশ্ন হচ্ছে: এক ফোটা প্রস্রাব কাপড়ে লাগলে কি গোসল করে পবিত্র হতে হবে?

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *